ছয় মাসের টাকা মার্চ মাসের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হবে

129

জানা গেছে, মার্চ মাসের মধ্যেই এ কিস্তির টাকা পরিশোধ হয়ে যাবে। এছাড়া ২০২০ সালের বাকী

জানা গেছে, মার্চ মাসের মধ্যেই এ কিস্তির টাকা পরিশোধ হয়ে যাবে। এছাড়া ২০২০ সালের বাকী ছয় মাসের টাকাও মার্চ মাসের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তি প্রদান প্রকল্পের পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মো. ইউসুফ আলী সংবাদমাধ্যমকে বলেন, বিভিন্ন কারণে গত ৯ মাসের টাকা দেওয়া সম্ভব হয়নি। এপ্রিল, মে, জুন মাসের দ্বিতীয় কিস্তির বকেয়া টাকা ছাড় হয়েছে। নগদের সহায়তায় দ্রুত সময়ের মধ্যে এ টাকা শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে যাবে।

তিনি আরও বলেন, যাদের এখনও নগদের সার্ভারে তথ্য এন্ট্রি দেওয়া বাকি আছে তাদের সুযোগ দিতে ১৫ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে নগদের পোর্টাল উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।

জানা গেছে, অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে ৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা উপবৃত্তি ও কিউস অ্যালাউন্সের জন্য ছাড় করা হয়েছে সম্প্রতি। এ টাকা থেকে প্রাথমিক পর্যায়ের নিয়মিত ১ কোটি ১০ লাখ শিক্ষার্থীর কিডস অ্যালাউন্স বাবদ প্রায় ১১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হবে। এছাড়া উপবৃত্তির তিন কিস্তির বকেয়া পরিশোধ করা হবে।

এ প্রসঙ্গে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন ঢাকা সংবাদমাধ্যমকে বলেন, কিডস অ্যালাউন্স ও বকেয়া উপবৃত্তির টাকা দেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ পেয়েছি। যে কোনো সময় এ টাকা বিতরণ করা হবে। তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর এ টাকা শিক্ষার্থীদের হাতে উপহার হিসেবে তুলে দিতে চাই। যাতে তারা নতুন উদ্যোমে ক্লাসে ফিরতে পারে।

এদিকে প্রাক-প্রাথমিকের প্রতিটি শিক্ষার্থীকে ৫০ টাকা হারে উপবৃত্তি দেওয়া হতো। এখন তা বাড়িয়ে ৭৫ টাকা করা হয়েছে। এছাড়া প্রাথমিক স্তরের এক সন্তান বিশিষ্ট পরিবারের মাসিক উপবৃত্তি ১০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৫০ টাকা করা হয়েছে। দুই সন্তান বিশিষ্ট পরিবারের উপবৃত্তি ৩০০ টাকা, তিন সন্তান বিশিষ্ট পরিবারের উপবৃত্তি ৪০০ টাকা এবং চার সন্তান বিশিষ্ট পরিবারের উপবৃত্তি ৫০০ টাকা করা হয়েছে।