এজলাসের সামনে যা বললেন রোজিনা ইসলাম

103

আমি অসুস্থ। আমার সঙ্গে অন্যায় করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। মঙ্গলবার  রিমান্ড শুনানি শেষে আদালত থেকে বের হওয়ার সময় তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এই অভিযোগ করেন।

এর আগে সকাল ১১টার দিকে এজলাসে উঠানো হয় সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে। সাধারণত এজলাসে স্বজন ও সাংবাদিকদেরকে প্রবেশ করতে দেয়া হলেও এদিন কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। আদালত শুনানি শেষে রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর করেন কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এরপর পুলিশ তাকে এজলাস থেকে বের করে আনেন। এ সময় রোজিনা ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আমার সঙ্গে তারা অনেক অন্যায় করেছে। আমি অসুস্থ। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের রিপোর্ট করার কারণে তারা আমার সঙ্গে এসব করছে।

মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) আরিফুর রহমান সরদার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। তার আগে সোমবার রাতভর শাহবাগ থানায় আটক রেখে আজ সকালে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে নেয়া হয়।

পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য গতকাল সোমবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে গেলে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে সেখানে পাঁচ ঘণ্টার বেশি সময় আটকে রেখে হেনস্তা করা হয়। একপর্যায়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। রাত সাড়ে আটটার দিকে পুলিশ তাঁকে শাহবাগ থানায় নিয়ে যায়। রাত পৌনে ১২টার দিকে পুলিশ জানায়, রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে মামলা করা হয়। তাঁকে এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। আজ আদালত তাকে তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। আদালতের আদেশ অনুযায়ী পুলিশ সাংবাদিক রোজিনাকে কাশিমপুর কারাগারে নিয়ে যান। আগামী বৃহস্পতিবার তার জামিন আবেদনের শুনানির কথা রয়েছে।