লঞ্চে যাত্রীর ভীড়,বাড়তি ভাড়ার অভিযোগ

44

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে সাত সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর ধারণক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে লঞ্চ চলাচল শুরুর কথা থাকলেও কোনো কোনো লঞ্চে স্বাভাবিক সময়ের মতো গাদাগাদি করে যাত্রী পরিবহন করতে দেখা গেছে।

সোমবার সন্ধ্যায় চাঁদপুর থেকে ছেড়ে আসা সোনার তরী-২ লঞ্চসহ একাধিক একাধিক লঞ্চে এই চিত্র দেখা যায়। সোনার তরী-২ এর যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায় ও হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সোমবার প্রথম দিনে সদরঘাট থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে যাত্রীবাহী লঞ্চ ছেড়ে যেতে দেখা যায়। খালি পড়ে থাকা পন্টুনে ফিরে আসে মানুষের পদচারণা।

লঞ্চগুলোর কর্মীদের মধ্যে যাত্রী তোলা নিয়ে হাঁকডাক ও প্রতিযোগিতার সেই পুরনো চিত্র যেন ফিরেছে। নৌপরিবহনে অনেক দিন পর যাতায়াত করতে পারার আনন্দ ফুটে উঠেছে অনেকের মুখে।

বিআইডব্লিউটিএর পরিবহন পরিদর্শক দীনেশ কুমার সাহা বলেন,সদরঘাট থেকে সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ৩৭টি লঞ্চ ছেড়ে যায়। বিভিন্ন গন্তব্য থেকে এসেছে ১৪টি। রাত সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত ৮০টির বেশি লঞ্চ ছেড়ে যাবে।

যাত্রী পরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, “একটু পর পর মাইকে ও হাত মাইকে স্বাস্থ্যবিধির কথা ঘোষণা করা হচ্ছে। মাস্ক পরা ছাড়া কাউকে লঞ্চে উঠতে দেওয়া হচ্ছে না “

সরজমিনে দেখা যায়, সদরঘাট থেকে ছাড়ার প্রস্তুতি নেওয়া লঞ্চের চেয়ারগুলো একটার পর একটা ফাঁকা রেখে যাত্রীদের বসতে দেওয়া হচ্ছে। তবে ঢাকায় আসা লঞ্চগুলোতে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় দেখা যায়।

গাদাগাদি করে যাত্রী নিলেও সরকার ঘোষিত হারে বাড়তি ভাড়া নেওয়া হয়েছে । এনিয়ে যাত্রীদের সঙ্গে মারামারিও অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে।