র‍্যাঙ্কিংয়ে ক্যারিয়ার সেরা অবস্থানে মুশফিক ও মিরাজ

80


একজন বল হাতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন, আরেক জন টানছেন ব্যাটিংয়ে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম সিরিজ জয়ে তাদের অবদানের ছাপ পড়েছে র‍্যাঙ্কিংয়ে। আইসিসি ওয়ানডে বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ের দুই নম্বরে উঠে এসেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে ক্যারিয়ার সেরা অবস্থানে আছেন মুশফিকুর রহিম।

আইসিসির বুধবার হালনাগাদ করা র‍্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি হয়েছে বাঁহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমানেরও।

লঙ্কানদের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে ৩০ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন মিরাজ। পরেরটি ২৮ রানে তিনটি। এতে র‍্যাঙ্কিংয়ে এই অফ স্পিনার তিন ধাপ উপরে উঠে এসেছেন, আছেন দুই নম্বরে।

বাংলাদেশের হয়ে এর আগে ওয়ানডে বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে সেরা দুইয়ে উঠতে পেরেছিলেন কেবল দুইজন। ২০০৯ সালে সাকিব আল হাসান প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে উঠেছিলেন শীর্ষে আর ২০১০ সালে আব্দুর রাজ্জাক দুইয়ে।

বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে আগের মতো শীর্ষে আছেন ট্রেন্ট বোল্ট। এক ধাপ করে নেমে মুজিব-উর-রহমান তিনে, ম্যাট হেনরি চারে ও জাসপ্রিত বুমরাহ আছেন পাঁচে।

দুই ওয়ানডেতেই চাপে পড়া দলকে টেনেছেন মুশফিক। এই কিপার-ব্যাটসম্যান প্রথম ম্যাচে করেন ৮৪, দ্বিতীয় ম্যাচে খেলেন ১২৫ রানের অসাধারণ এক ইনিংস। দুই ম্যাচেই জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। চার ধাপ এগিয়ে ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে উঠে এসেছেন ১৪ নম্বরে। এই মুহূর্তে যা বাংলাদেশিদের মধ্যে সেরা।


এই দুই ওয়ানডেতেই মুশফিককে দারুণ সঙ্গ দিয়ে দলের হাল ধরা মাহমুদউল্লাহ খেলেন ৫৪ ও ৪১ রানের ইনিংস। তিনি দুই ধাপ এগিয়ে আছেন ৩৮ তম স্থানে। লঙ্কান ব্যাটসম্যানদের কারো উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়নি।

ব্যাটসম্যানদের তালিকায় শীর্ষস্থানগুলোতে আসেনি পরিবর্তন। বাবর আজম, বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, রস টেইলর, অ্যারন ফিঞ্চরা যথারীতি আছেন সেরা পাঁচে।

বল হাতে আলো ছড়িয়েছেন মুস্তাফিজ। বাঁহাতি পেসার দুই ম্যাচে নিয়েছেন তিনটি করে উইকেট। এতে আট ধাপ এগিয়ে বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে উঠে এসেছেন নবম স্থানে। তার ক্যারিয়ার সেরা অবস্থান পঞ্চম, ২০১৮ সালে।

শ্রীলঙ্কার বোলারদের মধ্যে দুশমন্থ চামিরা ও ভানিন্দু হাসারাঙ্গা পেয়েছেন সাফল্য। পেসার চামিরা এগিয়েছেন ১১ ধাপ আর লেগ স্পিনার হাসারাঙ্গা আট ধাপ। যৌথভাবে আছেন ৬১তম স্থানে। ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও লাকসান সান্দাক্যানেরও উন্নতি হয়েছে।

অলরাউন্ডারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে যথারীতি শীর্ষে আছেন সাকিব।