পুতিন ও লুকাশেঙ্কোর বৈঠক

38

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্দার লুকাশেঙ্কো আজ শুক্রবার বৈঠক করতে যাচ্ছেন। বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

মধ্যাকাশ থেকে উড়োজাহাজ ঘুরিয়ে নিয়ে বেলারুশের ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক রোমান প্রোতাসেভিচ ও তাঁর রুশ বান্ধবী সোফিয়া সাপিগাকে গ্রেপ্তারের ঘটনার পর উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পুতিন-লুকাশেঙ্কোর মধ্যে বৈঠক হতে যাচ্ছে।

পুতিন ও লুকাশেঙ্কোর মধ্যকার বৈঠকটি রাশিয়ার সোচি শহরে অনুষ্ঠিত হবে। পুতিনের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত বেলারুশের ৬৬ বছর বয়সী প্রেসিডেন্ট লুকাশেঙ্কো। তিনি পুতিনের কাছ থেকে ব্যাপক সমর্থন পেয়ে আসছেন।

গত রোববার গ্রিসের এথেন্স থেকে লিথুয়ানিয়াগামী রায়ান এয়ারের একটি ফ্লাইট মিনস্কে ঘুরিয়ে নেয় বেলারুশের নিরাপত্তা বাহিনী। একটি মিগ-২৯ যুদ্ধবিমানের মাধ্যমে পাহারা দিয়ে ফ্লাইটটিকে মিনস্কের বিমানবন্দরে অবতরণ করানো হয়। তারপর ফ্লাইটের যাত্রী ও বেলারুশ সরকারের কট্টর সমালোচক প্রোতাসেভিচকে গ্রেপ্তার করা হয়। সঙ্গে তাঁর বান্ধবী সোফিয়াকেও গ্রেপ্তার করা হয়।

মধ্যাকাশ থেকে যাত্রীবাহী উড়োজাহাজ ঘুরিয়ে নেওয়া ও উড়োজাহাজ থেকে সাংবাদিককে গ্রেপ্তারের ঘটনাটি তদন্ত করার ঘোষণা দিয়েছে জাতিসংঘের সিভিল এভিয়েশন এজেন্সি। এ নিয়ে কূটনৈতিক বিরোধও তুঙ্গে। এমন প্রেক্ষাপটে পুতিন ও লুকাশেঙ্কো বৈঠক করছেন।

বেলারুশের এই কাজকে উড়োজাহাজ ‘ছিনতাই’ হিসেবে আখ্যায়িত করে কঠোর সমালোচনা করেছে পশ্চিমা দেশগুলো। এই নজিরবিহীন ঘটনার জন্য বেলারুশের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে ইউরোপের দেশগুলো। বিভিন্ন দেশ বেলারুশের সঙ্গে সব ধরনের ফ্লাইট পরিচালনা বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে। দেশটির বিরুদ্ধে নতুন করে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপে সম্মত হয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নেতারা।

এই ঘটনার কঠোর সমালোচনা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রোতাসেভিচ ও তাঁর বান্ধবীর অবিলম্বে মুক্তি ও বাক্স্বাধীনতা রক্ষার জন্য বেলারুশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।

উদ্ভূত অবস্থায় বেলারুশের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে রাশিয়া। তারা পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে ইউরোপের কিছু ফ্লাইটকে রাশিয়ায় প্রবেশ করতে দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

১৯৯৪ সাল থেকে বেলারুশের রাষ্ট্রক্ষমতায় আছেন লুকাশেঙ্কো। গত আগস্টে তিনি আবার বেলারুশের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তবে এই নির্বাচন নিয়ে জালিয়াতি ও কারচুপির অভিযোগ ওঠে।