হাসপাতালে তীব্র অক্সিজেন সংকট

64

হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেলা সদর হাসপাতালে তীব্র আকার ধারণ করেছে অক্সিজেন সংকট। অভিযোগ উঠেছে, অক্সিজেনের অভাবে বিনা চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর। তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সংকট কাটাতে চেষ্টা করছেন তারা।

মা রীতা বেগমকে নিয়ে বুধবার রাতে হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেলা সদর হাসপাতালে আসেন বড় ছেলে রুবেল আহমেদ। রীতা বেগমের ছিল প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট। চোখের সামনে ছটফট করতে দেখেন মাকে। কিন্তু দিতে পারেননি পর্যাপ্ত অক্সিজেন। শেষ পর্যন্ত মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন রীতা বেগম।

মৃত রীতা বেগমের মেয়ে রুবেল আহমেদ বলেন, আমার মা কে নিয়ে আসার পর কোথাও অক্সিজেন পাইনি। শেষ পর্যন্ত আরেক রোগীর কাছ থেকে ধার নিয়ে কিছু সময়ের জন্য মায়ের অক্সিজেনের ব্যবস্থা করেছিলাম। কিন্তু পর্যাপ্ত অক্সিজেন না পেয়ে আমার মা মারা গেছে। অক্সিজেন না থাকলে এই হাসপাতাল দিয়ে কি হবে?

হবিগঞ্জের এই হাসপাতালে প্রতিদিনই ভর্তি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী। সেই সাথে রয়েছে স্বাভাবিক রোগীর চাপও। কিন্তু বেশিরভাগেরই অভিযোগ, প্রয়োজন হলে পাওয়া যাচ্ছে না অক্সিজেন। কদাচিৎ দেখা মেলে চিকিৎসকের।

হাসপাতালে এখনও চালু হয়নি কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থা। নেই পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতি, অভাব রয়েছে প্রশিক্ষিত জনবলেরও।

হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেলা সদর হাসপাতালের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা.এ এন এম হাসান বলেন, আমাদের একটি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা আছে এর বাইরে ভ্যান্টিলেটর, আইসিইউ কিছুই নেই। আমাদের অনেক কিছুরই অভাব। ডাক্তার এবং দক্ষ কর্মীরও অভাব আছে।

এদিকে অক্সিজেন সংকট সমাধানে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানান ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. কায়সার রহমান। তিনি বলেন, আমাদের অক্সিজেন সিলিন্ডার যা আছে তা স্বাভাবিক সময়ের জন্য। যেহেতু রোগী বাড়ছে সংকট কিছুটা হবেই। কিন্তু আমরা চেষ্টা করছি অক্সিজেন সরবরাহ বাড়াতে, যাতে সংকট না থাকে।