সালমান খান ফার্মহাউসে মৃতদেহ পুঁতে রাখেন

77

বলিউড সুপারস্টার সালমান খান তার প্যানভেল ফার্মহাউসের প্রতিবেশী কেতন কাক্কাদের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছেন। তার ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে প্রশ্ন তোলার অভিযোগে এই মামলা করেন তিনি। সেই কেতন কাক্কাদই এবার সালমানের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ তুলেছেন।

কেতন দাবি করেছেন, সালমানের ফার্ম হাউজ প্যানভেলে বলিউডের বেশ কয়েকজন শিল্পীর মৃতদেহ পুঁতে রাখা হয়েছে। এমনকি শিশু পাচারের মতো অপরাধও হয় সেখানে।

যদিও কেতনের বিরুদ্ধে পাল্টা মানহানির মামলা দায়ের করেছেন সালমান। ইতোমধ্যে কেতনের সাক্ষাৎকারের অংশবিশেষও আদালতে পেশ করা হয়েছে। 

অভিনেতার আইনজীবী জানান, কেতন সাক্ষাৎকারে সালমানের ধর্মীয় পরিচয় টেনে তাকে অসম্মান করতে চেয়েছেন। এমনকি সালমান শিশু পাচার চক্রের সঙ্গে যুক্ত- এমন মন্তব্য করেছেন ওই ব্যক্তি।

এদিকে পুরো অভিযোগই তার প্রতিবেশীর কল্পনাপ্রসূত বলে মনে করছেন সালমান খান। 

তিনি বলেন, ‘‘কোনো প্রমাণ ছাড়াই এসব অভিযোগ আসলে ওই ব্যক্তির কল্পনা। জমি সংক্রান্ত মামলায় জড়ানোর কারণেই আমার বিরুদ্ধে এ রকম অপমানজনক কথা বলেছেন তিনি। আমার ধর্মও টেনে আনা হচ্ছে। আমার মা একজন হিন্দু, আমার বাবা মুসলিম, আমার ভাইয়ের হিন্দু মেয়ে বিয়ে করেছেন। আমরা সব ধর্মের সব অনুষ্ঠান পালন করে থাকি।’’

জানা যায়, সালমানের খামারবাড়ির পাশে এক খণ্ড জমি কিনতে চেয়েছিলেন কেতন কাক্কর। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তিনি তা পারেননি। এরপরই সালমান ও কেতনের মধ্যে বিবাদ শুরু হয়। এই অভিনেতার প্রতিবেশীর দাবি, পুরো বিষয়ে পেছন থেকে কলকাঠি নেড়েছেন ‘বলিউডের ভাইজান’।